পটিয়া'য় মোটরসাইকেল ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে শ্যালক ও দুলাভাই নিহত

পোস্টকার্ড প্রতিবেদক ।।

পটিয়া'য় মোটরসাইকেল ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে শ্যালক ও দুলাভাই নিহত
পটিয়া'য় মোটরসাইকেল ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে শ্যালক ও দুলাভাই নিহত

পটিয়ায় মোটরসাইকেল ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে শ্যালক মো. রফিকুল ইসলাম আরজু (২৫) ও দুলাভাই মো. শাজাহান (৪৫) মর্মান্তিকভাবে নিহত হওয়ার ঘটনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে ।

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডের প্রধান কার্যালয়ের রিসিপশনিস্ট শ্যালককে ঢাকার বাসে তুলে দেওয়ার জন্য মোটরসাইকেলে চট্টগ্রাম শহরে আসার পথে সোমবার (১৯ আগস্ট) রাত ১০টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ঈদের টানা ছুটির সঙ্গে আরও দুই দিন বাড়তি ছুটি শেষে মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) কর্মস্থলে যোগ দেওয়ার কথা ছিল আরজুর। তিনি ৬ বোনের একমাত্র ভাই ছিলেন।

শাজাহানের মামা ‘ইতিহাসের খসড়া’ সাময়িকীর সম্পাদক মুহাম্মদ শামসুল হক বাংলানিউজকে বলেন, ইন্দ্রপুল শিল্প এলাকার সুচক্রদণ্ডী ২ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা শাজাহান পেশায় পল্লিচিকিৎসক। তার একমাত্র মেয়ে মোনতাহা ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ে।তার স্ত্রী ইউসিবিএলের পটিয়া শাখায় কর্মরত। শ্যালক ও দুলাভাই একসঙ্গে নিহত হওয়ার ঘটনায়  পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। শত শত মানুষ ভিড় করছেন তাদের মুখ শেষবারের মতো দেখার জন্য। আসর নামাজের পর আল্লাই আমান আলী চৌধুরী মসজিদ ঈদগাহ মাঠে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

শাজাহানের চাচাত ভাই মো. সিরাজুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, দুর্ঘটনার পর সবাই ট্রাকের চালক ও সহযোগীদের উদ্ধারে ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন। প্রায় ১৫ মিনিট পর আরজুর ব্যাগ পানিতে ভেসে ওঠে। তখন মানুষ বুঝতে পারেন ছোট গাড়িও পানিতে পড়ে গেছে। তারপর শ্যালক ও দুলাভাইকে উদ্ধার করে পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) সকালে মরদেহ দুইটি কর্তৃপক্ষের অনুমতিতে বিনা ময়নাতদন্তে দাফনের জন্য নিয়ে আসা হয়।

তিনি জানান, শ্যালক ও দুলাভাইয়ের মধ্যে সম্পর্ক ছিল আপন ভাইয়ের মতো। চলেও গেলেন একসঙ্গে। তাদের দাফন হবে কাগজীপাড়ায়।

শ্যালক ও দুলাভাইয়ের পরিচিতজনদের করুণ স্ট্যাটাস, ছবিতে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও মাতম চলছে। আরজুর সহকর্মী রশীদ এনাম লিখেছেন-প্রিয় শাহাজান মামা ও প্রিয় সহকর্মী আরজু কীভাবে মেনে নেব তোদের চলে যাওয়া? কীভাবে মেনে নেব অপমৃত্যু? কেন এত অভিমান মামা? কেন এত তাড়াতাড়ি চলে গেলিরে মামা? আমি নানা বাড়িতে গেলে কার সঙ্গে গল্প করব? কার সঙ্গে বড়শি নিয়ে মাছ ধরব? নানিকে, ব্যাংকার মামিকে মামাত বোন ছোট মোনতাহাকে কীভাবে শান্ত্বনা দেবো?

পটিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বোরহান উদ্দিন বাংলানিউজকে জানান, দুর্ঘটনা কবলিত ট্রাক ও মোটরসাইকেল থানা হেফাজতে রয়েছে। এ ঘটনায় প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।