সাংবাদিকের উপর ক্ষেপে গেলেন ওসি

নিজস্ব প্রতিবেদক ।।

সাংবাদিকের উপর ক্ষেপে গেলেন ওসি
কাজী আয়েশা ফারজানা

মাদক কারবারিকে ছেড়ে দেয়ার সংবাদ প্রকাশের জের ধরে এক নারি সাংবাদিকের উপর ক্ষেপে গেলেন বোয়ালখালী থানার ওসি। অভিযোগ উঠেছে তাকে নাজেহাল করারও। কাজী আয়েশা ফারজানা নামের ওই নারি সাংবাদিক বিএমএসএফ বোয়ালখালী শাখার সাধারণ সম্পাদক ও জাতীয় দৈনিক কালের কন্ঠ পত্রিকার প্রতিনিধি।

বুধবার (৭ আগষ্ট) জাতীয় দৈনিক কালের কণ্ঠ পত্রিকায় “মাদক কারবারীকে আটক করে ছেড়ে দিল পুলিশ” শিরোনামের সংবাদটি প্রকাশের পর থেকেই ওই ওসি নেয়ামত উল্লাহ সাংবাদিকের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে আছেন বলে তার অশালীন বক্তব্যে প্রকাশ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে স্থানীয় সাংসদ মঈন উদ্দিন খান বাদলের উপস্থিতিতে এক সভায় ঘটনাটি ঘটেছে বলে জানাগেছে।

এদিকে, এ ঘটনায় বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম, চট্টগ্রাম দক্ষিন জেলা কমিটি তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে অবিলম্বে বিতর্কিত ওসি নেয়ামত উল্লাহকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানিয়েছে। অন্যথায় বিচারের দাবিতে কঠোর কর্মসূচী গ্রহণ করা হবে বলেও জানিয়েছেন সংগঠনের নেতারা।

এক বিবৃতিতে সংগঠনের চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার সভাপতি আব্দুল হাকিম রানা ও সাধারণ সম্পাদক কাইছার ইকবাল চৌধুরী বিতর্কিত ওসি নেয়ামত উল্লাহকে প্রকাশ্যে সাংবাদিকদের কাছে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানান। সাংবাদিক বিদ্বেষী ওই নেয়ামত উল্লাহ প্রকাশ্যে মাদক কারবারিকে আটক করে ছেড়ে দেয়ার সংবাদ প্রকাশ করায় এমপির সামনেই নারী সাংবাদিককে তাকে লাঞ্ছিত ও নাজেহাল করেন। এদিকে ওই ওসির বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের পটিয়া থানায় থাকাকালেও ব্যাপক অনিয়ম, দূর্নীতি, ক্ষমতার অপব্যবহার এবং সাংবাদিকদেরকে মিথ্যা অভিযোগে মামলা দায়েরসহ নানা হয়রানীর ঘটনা ঘটিয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

উল্লেখ্য গত সোমবার রাতে পুলিশ বোয়ালখালী উপজেলার কড়লডেঙ্গায় অভিযান চালিয়ে জনৈক সাইদুল ইসলাম রাসেলের শ্রমিক থাকার ঘরের পাশ থেকে দুই বস্তা চোলাই মদ উদ্ধার করে। এ সময় রাসেলকে আটক করে থানায় আনার পর ওসি তাকে ছেড়ে দেন। সংবাদটি ৭ আগস্ট কালেরকন্ঠে প্রকাশিত হওয়ায় বিতর্কিত ওসি নেয়ামত উল্লাহ ক্ষুদ্ধ হন।