সোনাদিয়ার চরে নামিয়ে দেয়া হল মালয়েশিয়া বলে , মানবপাচারকারী সিন্ডিকেট সক্রিয়

গা ঢাকা দিল ১৬ জন , ২৫ রোহিঙ্গা উদ্ধার

সোনাদিয়ার চরে নামিয়ে দেয়া হল মালয়েশিয়া বলে , মানবপাচারকারী সিন্ডিকেট সক্রিয়

পোস্টকার্ড ( মহেশখালী) প্রতিনিধি ।।

সাগরে পাঁচদিন ঘুরিয়ে মালয়েশিয়ার চর বলে ৪১ রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশুকে ট্রলারে করে মহেশখালীর সোনাদিয়ার চরে নামিয়ে দিয়ে পালিয়েছে মানবপাচারকারী সিন্ডিকেটের সদস্যরা। পরে পুলিশ ২ শিশুসহ ২৫ জন রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করলেও বাকি ১৬ জন সোনাদিয়ার প্যারাবনে গা ঢাকা দিয়েছে।
গতকাল (২৪ নভেম্বর) ভোরে সোনাদিয়ার মগ চরে রোহিঙ্গা একদল নারী-পুরুষকে বিক্ষিপ্তভাবে ঘোরাফেরা করতে দেখে সোনাদিয়া দ্বীপে অবস্থানরত বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) কর্মচারীরা তাদের আটকে রেখে পুলিশে খবর দেন। আটক রোহিঙ্গা নারী-পুরুষরা জানান, গত ৫দিন ধরে তাদেরকে সাগরপথে মালয়েশিয়া নিয়ে যাওয়ার কথা বলে দালালরা সাগরে ঘুরাতে থাকে। অবশেষে মালেশিয়ার চর বলে ভোরে তাদেরকে নামিয়ে দেয় দালালরা। স্থানীয়দের দেয়া খবরের ভিত্তিতে মহেশখালী থানা পুলিশ ২৫ জন রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করতে সক্ষম হলেও বাকি ১৬ জন সোনাদিয়ার প্যারাবনে ও বিভিন্ন চিংড়ি খামারে ঢুকে লুকিয়ে গা ঢাকা দেয় বলে জানান স্থানীয়রা।
পুলিশ জানায়, অভিযান চালিয়ে
রবিবার সকালে সোনাদিয়ার মগচর হতে ২শিশু, ১২ জন নারী ও ১১ জন পুরুষসহ মোট ২৫ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারকৃত রোহিঙ্গারা জানান, তারা কক্সবাজারের উখিয়ার বালুখালী ক্যাম্প, ধুমধুম ক্যাম্প ও কুতুপালং ক্যাম্প থেকে দালালের মাধ্যমে মালয়েশিয়ায় যাওয়ার উদ্দেশ্যে ট্রলারে উঠে। পাচারকারী দালালরা তাদেরকে ৫ দিন সাগরের বিভিন্নস্থানে ঘুরিয়ে রোববার ভোরের আগে একটি চরে নামতে বলে। এরপর পাচারকারীরা ট্রলার নিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা জানান, ইতিপূর্বেও সোনাদিয়া দ্বীপে এ ধরণের ঘটনা আরো কয়েকবার ঘটেছে। একটি মানবপাচারকারী সিন্ডিকেট সক্রিয় রয়েছে বলে জানান তিনি।
মহেশখালী থানার ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধর জানান, উদ্ধারকৃতদের সংশ্লিষ্ট রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদে মালয়েশিয়ায় মানবপাচার কাজে জড়িত ব্যক্তিদের সনাক্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।