ভারত অনেক বিপজ্জনক খেলা খেলছে : পাকিস্তান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ।।

ভারত অনেক বিপজ্জনক খেলা খেলছে : পাকিস্তান
ভারত অনেক বিপজ্জনক খেলা খেলছে : পাকিস্তান
জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলসহ উপত্যকায় সেনা বাড়ানো এবং কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রীদের গৃহবন্দি করা নিয়ে উত্তপ্ত রাজনৈতিক পরিস্থিতির মধ্যে এ নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে পাকিস্তান। পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি সতর্ক করে বলেছেন, ‘ভারত বিপজ্জনক খেলা খেলছে। আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতার ক্ষেত্রে এর পরিণতি ভয়ঙ্কর হবে।’ জম্মু কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা তুলে নেওয়ার ভারতীয় পদক্ষেপকে ‘অবৈধ’ বলে নিন্দা জানিয়ে সক্রিয়ভাবে এর বিরোধিতা করার সংকল্প ব্যক্ত করেছে পাকিস্তান।
পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি বলেন, ‘পাকিস্তান মোদী সরকারের এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে এবং এ প্রচেষ্টা আটকাতে সম্ভাব্য সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’ ভারত কাশ্মীর নিয়ে জাতিসংঘ প্রস্তাবনা লঙ্ঘন করেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
গতকাল পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘ভারত এককভাবে কাশ্মীরের মর্যাদা বদলাতে পারে না। তাদের এ সিদ্ধান্ত মেনে নেবে না জম্মু-কাশ্মীরের মানুষ এবং পাকিস্তান। কাশ্মীরের রাজনৈতিক, কূটনৈতিক এবং নৈতিক বিকাশের জন্য পাকিস্তান লড়াই চালিয়ে যাবে।’
পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন)-এর চেয়ারম্যান তথা বিরোধী নেতা শাহবাজ শরিফ বলেন, ‘মোদী সরকারের এই সিদ্ধান্ত জাতিসংঘ-বিরোধী। এটা আসাংবিধানিক। এক প্রকার দেশদ্রোহ। যা কোনও ভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।’ অন্য দিকে, পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট আসিফ আলি জারদারির ছেলে বিলাওয়াল ভুট্টোও মোদী সরকারের এই সিদ্ধান্তকে ধিক্কার জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘ভারত সরকার কী চাইছে, ৩৭০ ধারার বিলুপ্তি ঘটিয়ে তা স্পষ্ট করে দিয়েছে।’
এদিকে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের ভারতীয় পদক্ষেপের প্রতিবাদে পাকিস্তানজুড়ে শুরু হয়েছে বিক্ষোভ। গতকাল বিক্ষোভ হয়েছে পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদ এবং করাচিসহ পাক-শাসিত কাশ্মীরের মুজাফফরবাদেও। মুজাফফরবাদে ভারত-পাকিস্তানের বিতর্কিত সীমান্তের প্রায় ৪৫ কিলোমিটার দূরের এলাকায় বিক্ষোভকারীরা জড়ো হয়ে কালো পতাকা নিয়ে এবং গাড়ির টায়ার পুড়িয়ে বিক্ষোভ করেন। ‘ভারত নিপাত যাক’ স্লোগান দেয় তারা। এক বিক্ষোভকারী বলেন, ‘কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে উদ্দেশ্য সিদ্ধি হবে না। আমরা লড়াই করব। আরো উদ্যমী হয়ে লড়ব।’ তবে বিক্ষোভকারীরা কেবল ভারতের বিরুদ্ধেই নয় পাকিস্তান সরকারের বিরুদ্ধেও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। কাশ্মীর নিয়ে ভারতের পদক্ষেপ ঠেকাতে না পারার জন্য পাকিস্তান সরকারকে দোষারোপ করেছে তারা। মুজাফফরবাদের এক কাশ্মীরীর ভাষ্য, ‘পাকিস্তানের নিস্ক্রিয়তার কারণেই ভারত এমন পদক্ষেপ নিতে উৎসাহিত হয়েছে। এতে পাকিস্তান সরকারের দুর্বলতারই প্রকাশ ঘটেছে।’ খবর বিভিন্ন সংবাদ সংস্থার।