ব্ল্যাকহেডসকে বলুন বিদায়!

ব্ল্যাকহেডসকে বলুন বিদায়!
ব্ল্যাকহেডসকে বলুন বিদায়!

পোস্টকার্ড ডেস্ক ।।

চকচকে উজ্জ্বল ত্বক পেতে কার না ইচ্ছে করে। কিন্তু শুধুমাত্র বাইরে থেকে যত্ন নিলেই হয় না শরীরের ভিতরটাও সুস্থ রাখতে হয়। তবে যদি আপনার তৈলাক্ত ত্বক হয় তাহলে ত্বকের পিছনে আপনার খাটনি অন্যদের তুলনায় একটু বেশিই। কারণ ও তৈলাক্ত ত্বক সাধারণত যে কোনও ত্বক-সম্পর্কিত সমস্যায় আগেভাগে জড়িয়ে পড়ে। অ্যাকনে, পিম্পল হোয়াইটহেড এবং ব্ল্যাকহেডের সমস্যা যথেষ্ট বেশি পরিমাণে ভোগায় তৈলাক্ত ত্বকের অধিকারীদের। বহু মানুষ এগুলির হাত থেকে রেহাই পেতে কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা খরচা করে সালোঁ যান। নানা দামি বিউটি প্রোডাক্টও কেনেন। কিন্তু সামান্য ঘরোয়া টোটকা ব্যবহার করেই এর হাত থেকে নিস্তার মিলতে পারে। সাধারণত নাক, গাল এবং থুতনিতে এই সমস্যা বেশি হয়। রান্নাঘরের তিনটি উপাদান ব্ল্যাকহেডের সমস্যায় ম্যাজিকের মতো কাজে দিতে পারে।উদ্বৃত্ত ভাত গরম করার ক্ষেত্রে সাবধান! ভ্রান্তি ডেকে আনতে পারে ডায়েরিয়া

স্ক্রাবারবানাতে কী প্রয়োজন:

একটি কলা পেস্ট করে নেওয়া

দুই টেবিলচামচ ওটসের গুঁড়ো

১ টেবিল চামচ মধু

প্রণালী:

প্রথমে একটি পাত্রে গুঁড়ো করা ওটস নিন। ওর মধ্যে কলা এবং মধু দিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি মুখের সব জায়গায় সমান ভাবে মেখে নিন। এ বার গোলাকার ভাবে ৫ থেকে ৭ মিনিট হাল্কা হাতে ম্যাসাজ করুন। সবশেষে উষ্ণ গরম জল দিয়ে ধীরে ধীরে তুলে ফেলুন। এরপরে কোনও হালকা ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে পারেন।

মৃত কোষ দূর করতে এবং ময়লা পরিষ্কার করতে ওটসের জুড়ি মেলা ভার। মধু মশ্চারাইজিং উপাদান হিসেবে ত্বকের উপরে কাজ করে। এর মধ্যে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল উপাদান থাকে। কলার ত্বকের আর্দ্রতাকে ধরে রাখতে সাহায্য করে

এই সামান্য তিনটে উপাদানের ব্যবহারেই আপনার সৌন্দর্য অন্য মাত্রা পেতে পারে।