জাতীয় শোক দিবসে চট্টগ্রামে ব্যাপক কর্মসূচি অনুষ্ঠিত

বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ

জাতীয় শোক দিবসে চট্টগ্রামে ব্যাপক কর্মসূচি অনুষ্ঠিত
বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ

পোস্টকার্ড ডেস্ক ।।

বিনম্র শ্রদ্ধা ও হৃদয় নিংড়ানো ভালোবাসায় বাংলাদেশের স্থপতি, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করেছে চট্টগ্রামের শোকার্ত মানুষ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন, আওয়ামী লীগ, বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে শ্রদ্ধাভরে তাঁকে স্মরণ করেন।
সকালে নগর ভবন চত্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে দিনের কর্মসূচির শুরু করেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। পরে নগর ভবনে এতিম সমাবেশ, খতমে কোরআন, মিলাদ মাহফিল, বিশেষ মোনাজাত ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন, শোক র‌্যালি, আলোচনা সভা, দরিদ্রদের মাঝে খাবার বিতরণসহ নানা কর্মসূচির আয়োজন করে জেলা প্রশাসন এবং আওয়ামী লীগ ও এর বিভিন্ন সহযোগী সংগঠন। সকালে নগরীর দারুল ফজল মার্কেটে দলীয় কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান নগর আওয়ামী লীগ নেতারা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন, আওয়ামী লীগ নেতা নঈম উদ্দিন চৌধুরী, নোমান আল মাহমুদ, শ্রমিক লীগ নেতা শফর আলী, আলতাফ হোসেন বাচ্চু, অ্যাডভোকেট শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, জহুর আহমদ প্রমুখ।
বঙ্গবন্ধুর ৪৪তম শাহাদতবার্ষিকী পালন করেছে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় ও জেলা প্রশাসন। সকালে নগরীর সার্কিট হাউজ থেকে শোক শোভাযাত্রা নগরীর শিল্পকলায় গিয়ে শেষ হয়। নেতৃত্ব দেন বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নান। উপস্থিত ছিলেন, সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন। এতে অংশ নেন, রাজনৈতিক দলের নেতা, মুক্তিযোদ্ধা, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীরা।
র‌্যালি চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজ থেকে শুরু হয়ে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।
মহানগর আওয়ামী লীগ :
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে মহানগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে গতকাল ১৫ আগস্ট জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ, কালো পতাকা উত্তোলন শেষে কালোব্যাজ ধারণ এবং জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীনের নেতৃত্বে নেতৃবৃন্দ পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। এরপর বঙ্গবন্ধু ও ১৫ আগস্টের শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় খতমে কোরআন, দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, বঙ্গবন্ধুর বিশালত্ব দিনদিন বাড়ছে। ৭৫ এর ১৫ আগস্ট তাঁকে সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে যারা জাতির জনকের নাম মুছে দিতে চেয়েছিল তারাই এখন ইতিহাসের ঘৃণিত আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত হয়েছে। তবে তাদের প্রেতাত্মারা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে ছদ্মবেশ ধারণ করে লুকিয়ে আছে। তাদেরকে চিহ্নিত করে সমাজকে সম্মিলিতভাবে পাপমুক্ত করতে হবে।
ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার মূল আসামিদের বিচার ও বিচারের রায় কার্যকর হলেও নেপথ্যের কুশীলবরা আড়ালে রয়ে গেছে। তাদেরকেও বিচারের আওতায় আনতে হবে। এসময় উপস্থিত ছিলেন, নঈম উদ্দীন চৌধুরী, অ্যাড. সুনীল কুমার সরকার, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, সফর আলী, শেখ মাহমুদ ইসহাক, নোমান আল মাহমুদ, অ্যাড. ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, জহুর আহমেদ, শহীদুল আলম, জহর লাল হাজারী, আবুল মনসুর, মোহাম্মদ ইয়াকুব, বখতেয়ার উদ্দিন খান, শফিকুল হাসান, জামশেদুল আলম চৌধুরী, ফিরোজ আহমদ, দলিলুর রহমান, আবদুল মালেক, কায়সার মালিক, ফয়জুল্লাহ বাহাদুর প্রমুখ।
উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪ তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা গতকাল বৃহস্পতিবার সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির সভাপতিত্বে জেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। বেদারুল আলম চৌধুরী বেদারের সঞ্চালনায় সভায় অংশ নেন সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম এ সালাম, মো. মঈনুদ্দিন, অ্যাডভোকেট ফখরুদ্দিন চৌধুরী, মো. আবুল কালাম আজাদ, মো. গিয়াস উদ্দিন, মো. জসিম উদ্দিন, ইউনুস গণি চৌধুরী, এটিএম পেয়ারুল ইসলাম, দেবাশীষ পালিত, এহেছানুল হায়দর চৌধুরী বাবুল, স্বজন কুমার তালুকদার, আবুল কাশেম চিশতি, মহিউদ্দিন বাবলু, ইঞ্জিনিয়ার মো. হারুন, অ্যাডভোকেট ভবতোষ নাথ, আলাউদ্দিন সাবেরী, অ্যাড. এম এ নাসের চৌধুরী, মহিউদ্দিন রাশেদ, মো. নুরুল হুদা, ইফতেখার হোসেন বাবুল, মঞ্জুরুল আলম চৌধুরী, শওকত আলম, এস এম শফিউল আজম, শাহনেওয়াজ চৌধুরী, কাজী মো. ইকবাল, মোহাম্মদ ইদ্রিস, মো. সেলিম উদ্দিন, উত্তর জেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক এস.এম রাশেদুল আলম, মহিলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. বাসন্তী প্রভা পালিত, রাশেদ খান মেনন, বখতেয়ার সাঈদ ইরান, উত্তর জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি তানভির হোসেন তপু, সাধারণ সম্পাদক মো. রেজাউল করিম প্রমুখ। সভাপতির বক্তব্যে ফজলে করিম চৌধুরী এমপি বলেন, ১৫ আগস্টের খুনি ও তাদের সুবিধাভোগী চক্রের ষড়যন্ত্র আজো থেমে নেই। জেনারেল জিয়াকে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের ষড়যন্ত্রকারী আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের মূল বেনিফিশিয়ারী জিয়া ও তার দল বিএনপি আর বেগম জিয়া কুশীলবদের অন্যতম। খুনি চক্রের বিচার হয়েছে, কুশীলবদের বিচারও বাংলার মাটিতে হবে। যতদিন বাংলাদেশ থাকবে ততদিন বঙ্গবন্ধুর নাম অমর অক্ষয় হয়ে থাকবে। সাধারণ সম্পাদক এম এ সালাম বলেন, বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু এক অবিচ্ছেদ্য সত্তা। কর্মসূচির মধ্যে ছিল-ভোরে দলীয় কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন, জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ, কালো ব্যাজ ধারণ, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন এবং বিকেলে মওলানা মো. ফখরুদ্দিনের পরিচালনায় মিলাদ ও বিশেষ মোনাজাত।
দক্ষিণ জেলা আ’লীগ :
দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদ বলেছেন, ঘাতকরা বিশেষ উদ্দেশ্য নিয়ে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নিয়ে শুরু হয় এক ঘৃণ্য ষড়যন্ত্র। ইতিহাস থেকে মুক্তিযুদ্ধের মহানায়কের নাম মুছে ফেলার ব্যর্থ চেষ্টা হয়েছিল। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে তরুণদের দীর্ঘকাল জানতে দেয়া হয়নি মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস। গতকাল বৃহস্পতিবার সংগঠনের আন্দরকিল্লাস্থ কার্যালয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান বলেন, একটি ঘুমন্ত ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে সঠিক পথনির্দেশ দিয়ে স্বাধীন ভূখণ্ড সৃষ্টি করে বিশ্বে আমাদের আত্মপরিচয় দানের সুযোগ দান করেছেন বঙ্গবন্ধু।
সভায় বক্তব্য দেন, আবুল কালাম চৌধুরী, আবু সাঈদ, শাহাজাদা মহিউদ্দিন, অ্যাড. মির্জা কছির উদ্দিন, প্রদীপ কুমার দাশ, ডা. বিদ্যুৎ কুমার বড়ুয়া, খোরশেদ আলম, আবু জাফর, বোরহান উদ্দিন এমরান, আবদুল কাদের সুজন, অ্যাড. মুজিবুল হক, দেবব্রত দাশ, চেয়ারম্যান নাছির আহমদ, মোস্তাক আহমদ আঙ্গুর, সৈয়দুল মোস্তফা চৌধুরী রাজু, সৈয়দ জামাল আহমদ, মাহবুবুর রহমান সিবলী, মাহফুজুল হক চৌধুরী, মাহফুজুর রহমান মেরু, দক্ষিণ জেলা যুবলীগ সভাপতি আ ম ম টিপু সুলতান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক পার্থ সারথী চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা কৃষকলীগ সভাপতি আতিকুর রহমান চৌধুরী, দিদারুল আলম, পরিমল দে, মমতাজ উদ্দিন, অ্যাড. জোবাইদা গুলশান আরা জিমি, খালেদা আক্তার চৌধুরী, কামরুন নাহার কমরু, নিলুফার জাহান বেবী, আবু সৈয়দ, আবদুর রহিম, রাজিন দাশ রাহুল, দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি এস এম বোরহান উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মো. আবু তাহের প্রমুখ। খতমে কোরআন, দোয়া মাহফিল ও মোনাজাত পরিচালনা করেন হাফেজ মাওলানা মমতাজুল ইসলাম। শেষে নেতৃবৃন্দ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান। এছাড়া ভোরে সংগঠন কার্যালয়ে জাতীয়, দলীয় ও কালো পতাকা উত্তোলন এবং দিনব্যাপী বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ প্রচার করা হয়।
মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগ :
বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে স্বেচ্ছাসেবক লীগ মহানগরের উদ্যেগে দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়। এর মধ্যে রয়েছে কালো ব্যাজ ধারণ, স্মরণসভা, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধাঞ্জলি এবং বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যসহ শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় মিলাদ মাহফিল ও বিশেষ মোনাজাত। সভায় সভাপতিত্ব করেন আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট এএইচএম জিয়া উদ্দিন। বক্তব্য দেন, যুগ্ম-আহ্বায়ক কেবিএম শাহজাহান, নুরুল কবির, তারেক মাহমুদ পাপ্পু, আনোয়ারুল ইসলাম বাপ্পী, পংকজ চৌধুরী কংকন প্রমুখ।
মহানগর তাঁতী লীগ :
জাতীয় শোক দিবসে মহানগর তাঁতী লীগের উদ্যোগে শ্রদ্ধাঞ্জলি প্রদান করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে আন্দরকিল্ল্লা সিটি কর্পোরেশন ভবনস্থ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য প্রদান করেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এসময় নেতৃবৃন্দ স্বাধীনতার স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানসহ সকল শহীদদের আত্মার শান্তি কামনায় এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। মহানগর তাঁতী লীগের আহ্বায়ক নুরুল আমিন মানিক ও সদস্য সচিব রত্নাকর দাশ টুনুর নেতৃত্বে শ্রদ্ধাঞ্জলি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন মো. শহীদ, এবিএম মাছুম আহম্মদ, শ্রীপ্রকাশ দাশ অসিত, মো. গিয়াস উদ্দিন, এসএম আবুল কালাম, মো. আবু বক্কর, রূপক চৌধুরী, কামরুল ইসলাম হীরা, নুরুল ইসলাম নাহিদ, শারমীন আক্তার জয়া, নুরুল ইসলাম, মো. সরয়োর্দী, মো. আজিজুল হক, হিল্লোল সেন উজ্জ্বল, সুকান্ত মহাজন টুটুল, মিশু তালুকদার, প্রকৌশলী সৈকত দাশ, আসাদুজ্জামান নয়ন বাবু, অধ্যাপক অঞ্জন দত্ত, মো. জুয়েল, ইয়াছিন হোসেন, নুরুল আলম টারজেন, মোহাম্মদ নাছির, লিয়াকত আলী, রনেশ হাওলাদার, রাহুল দত্ত, দীপ্ত সিংহ, মাঈন উদ্দিন, সাইফুল ইসলাম মারুফ, মোহাম্মদ সোহেল, মো. মতিউর রহমান প্রমুখ।