‘ কাশ্মীরি মেয়েদের বাড়ির বউ করে আনতে অসুবিধা হবেনা ’ - বক্তব্য খোদ মুখ্যমন্ত্রীর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ।।

‘ কাশ্মীরি মেয়েদের বাড়ির বউ করে আনতে অসুবিধা হবেনা ’ - বক্তব্য খোদ মুখ্যমন্ত্রীর
‘ কাশ্মীরি মেয়েদের বাড়ির বউ করে আনতে সুবিধা হবেনা ’ - বক্তব্য খোদ মুখ্যমন্ত্রীর

এক বিজেপি বিধায়কের মন্তব্যে শোরগোল পড়েছিল আগেই। এবার চমকে দিলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী। কাশ্মীরি মেয়েদের বাড়ির বউ করে আনতে অসুবিধা হবেনা এমনই মন্তব্য করে বসেছেন ভারতের হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খট্টর।

কাশ্মীরে আর্টিকেল ৩৭০ বিলুপ্ত করার ফলে কী সুবিধা হলো তা বোঝাতে গিয়ে গতকাল শুক্রবার হরিয়ানার ফতেহাবাদে ‘মেয়ে বাঁচাও’ কর্মসূচিতে খট্টর এই মন্তব্য করে বসেন।

বিজেপির এই মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের ওপি ধানকড় বলেন যে তিনি বিহার থেকে বউ নিয়ে আসবেন। আর আজকাল সবাই বলছে কাশ্মীরের রাস্তা ফাঁকা হয়েছে। এবার আমরা কাশ্মীর থেকে মেয়ে নিয়ে আসতে পারব।’

এর আগে মুজফ্ফরনগরের কাতাউলির বিধায়ক বিক্রম সিং সাইনি বলেছিন, দলীয় কর্মীরা এক্সাইটেড কারণ তারা এবার ফর্সা কাশ্মীরি মেয়েদের বিয়ে করতে পারবেন। বিজেপি বিধায়কের এই বক্তব্যের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়ে যায়।

কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা বিলোপের পর কাতাউলিতে সেলিব্রেশনে মেতে ওঠেন বিজেপি কর্মীরা। সেখানে বক্তব্য পেশ করতে গিয়েই এই বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন তিনি।

কাশ্মীর সম্পর্কে তিনি বলেছিলেন, ‘সেখানে নারীর ওপর কত অত্যাচার হতো। সেখানের মেয়েরা যদি উত্তরপ্রদেশের কাউকে বিয়ে করে নিত তাহলে তার নাগরিকত্ব শেষ হয়ে যেত। ভারতের নাগরিকত্ব আলাদা, কাশ্মীরের আলাদা। আর এখানে যে সব মুসলিম কর্মকর্তারা রয়েছেন, তাদের উচ্ছ্বসিত হওয়া উচিত। কাশ্মীরি মেয়েদের বিয়ে কর। এটা সমগ্র দেশের জন্য খুশির খবর।’

বিধায়কের এই বক্তব্য নিয়ে বিতর্ক হতেই, তিনি সাফ জানান, তিনি কিছু ভুল বলেননি। এখন যে কেউ কাশ্মীরি মেয়েদের বিয়ে করতে পারে কোনো বাধা ছাড়াই। এটা সত্যি এবং তিনি ঠিক বলেছেন বলে স্পষ্ট জানান। এটা কাশ্মীরবাসীর কাছে স্বাধীনতা। তাই মঙ্গলবার উৎসবের আয়োজন করা হয় বলে জানান ওই বিজেপি বিধায়ক।